জরায়ুমুখ ক্যান্সারের ঝুঁকি লক্ষণ ও চিকিৎসা

জরায়ুমুখ ক্যান্সারের ঝুঁকি লক্ষণ ও চিকিৎসা

এটি নির্ণয়ে অনেকটা সময় পাওয়া যায়। তাই নিয়মিত স্ক্রিনিংয়ের ওপর জোর দিচ্ছেন চিকিৎসকেরা।জরায়ু ক্যান্সারকে বলা

হয় ‘নীরবঘাতক’। কারণ এই অসুখে আক্রান্ত হলেও অনেক নারী এর লক্ষণ বুঝতে পারেন না। আবার ভিন্ন লক্ষণ দেখা দিলেও

অনেক সময় গুরুত্ব দেন না। নারীরা জরায়ুমুখ ক্যান্সারে বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন।

আক্রান্তের সংখ্যার দিক থেকে বাংলাদেশে নারীদের মধ্যে স্তন ক্যান্সারের পরেই জরায়ুমুখ ক্যান্সারের স্থান।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বব্যাপী প্রতি বছর ৫ লাখ ৭০ হাজার নারী এই জরায়ুমুখ ক্যান্সারে আক্রান্ত হন

এবং প্রায় ৩ লাখ ১০ হাজার নারী এর ফলে মারা যান। আর ৯০ শতাংশ মৃত্যুর ঘটনাই ঘটছে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের

দেশগুলোতে। ইন্টারন্যাশনাল এজেন্সি ফর রিসার্চ অন ক্যান্সার বা আইএআরসি’র তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে প্রতি বছর নতুন

করে ৮ হাজার ২৬৮ জন নারীর শরীরে শনাক্ত হচ্ছে জরায়ুর ক্যান্সার। আর বছরে ৪ হাজার ৯৭১ জন নারী জরায়ু মুখের

ক্যান্সারে মারা যাচ্ছেন। হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাসকে (এইচপিভি) জরায়ুমুখ ক্যান্সারের অন্যতম কারণ হিসেবে গণ্য করা

হয়।

১০০টিরও বেশি প্রজাতির এইচপিভি আছে।

এর মধ্যে দুই ধরনের হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাসের কারণে এই ক্যান্সার হয়ে থাকে বলে জনাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে

ভাইরাসটি শরীরে প্রবেশের পরপরই কিন্তু ক্যান্সার হয় না। গবেষক ও চিকিৎসকরা বলছেন, জীবাণু প্রবেশের পর ১৫ থেকে ২০

বছরও সময় লাগে জরায়ুমুখের ক্যান্সার হতে। তার মানে হলো অন্য ধরনের ক্যান্সারের তুলনায় জরায়ু মুখের ক্যান্সার কিন্তু

খুব সহজে নির্ণয় করা যায়। তবে জরায়ু মুখের ক্যান্সারের মূল সমস্যা হল এটি শেষ পর্যায়ে গেলেই শুধুমাত্র ব্যথা দেখা দেয়।

আর এই ক্যান্সারের লক্ষণগুলোকে অনেকেই পিরিয়ডের মেয়েলী সমস্যা বলে ভুল করে থাকেন। এমন ভুল যেন না হয়, সেজন্য

লক্ষণগুলো মনে রাখা জরুরি। জরায়ু ক্যান্সারের ঝুঁকি, লক্ষণ ও চিকিৎসার বিষয়ে জানতে পারবেন বিবিসির এই ভিডিওতে।

জরায়ু ক্যান্সারকে বলা হয় ‘নীরবঘাতক’।

কারণ এই অসুখে আক্রান্ত হলেও অনেক নারী এর লক্ষণ বুঝতে পারেন না। আবার ভিন্ন লক্ষণ দেখা দিলেও অনেক সময় গুরুত্ব

দেন না। নারীরা জরায়ুমুখ ক্যান্সারে বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন। আক্রান্তের সংখ্যার দিক থেকে বাংলাদেশে নারীদের মধ্যে স্তন

ক্যান্সারের পরেই জরায়ুমুখ ক্যান্সারের স্থান। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বব্যাপী প্রতি বছর ৫ লাখ ৭০ হাজার

নারী এই জরায়ুমুখ ক্যান্সারে আক্রান্ত হন এবং প্রায় ৩ লাখ ১০ হাজার নারী এর ফলে মারা যান। আর ৯০ শতাংশ মৃত্যুর

ঘটনাই ঘটছে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোতে। ইন্টারন্যাশনাল এজেন্সি ফর রিসার্চ অন ক্যান্সার বা আইএআরসি’র তথ্য

অনুযায়ী, বাংলাদেশে প্রতি বছর নতুন করে ৮ হাজার ২৬৮ জন নারীর শরীরে শনাক্ত হচ্ছে জরায়ুর ক্যান্সার। আর বছরে ৪

হাজার ৯৭১ জন নারী জরায়ু মুখের ক্যান্সারে মারা যাচ্ছেন।

হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাসকে (এইচপিভি) জরায়ুমুখ ক্যান্সারের অন্যতম কারণ হিসেবে গণ্য করা হয়।

১০০টিরও বেশি প্রজাতির এইচপিভি আছে। এর মধ্যে দুই ধরনের হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাসের কারণে এই ক্যান্সার হয়ে

থাকে বলে জনাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে ভাইরাসটি শরীরে প্রবেশের পরপরই কিন্তু ক্যান্সার হয় না। গবেষক ও চিকিৎসকরা

বলছেন, জীবাণু প্রবেশের পর ১৫ থেকে ২০ বছরও সময় লাগে জরায়ুমুখের ক্যান্সার হতে। তার মানে হলো

Share

৯ thoughts on “জরায়ুমুখ ক্যান্সারের ঝুঁকি লক্ষণ ও চিকিৎসা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *